Ruhul Amin

2017-09-20 23:22:57

আসসালামু আলাইকুম ওরাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাহ কাতুহু। স্যার, আমার নাম মোঃ রুহুল আমীন, থানা রুপগঞ্জ, জেলা নারায়নগঞ্জ। গভার্মেন্ট তিতুমির কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের একজন ছাত্র। আমার লাইফে ক্লাশের বই ছাড়াও অনেক লেখকের ইংরেজী বই কিনেছি শুধুমাত্র ইংরেজী ভাষায় শেখার জন্য কিন্তু তাতে ফল পাইনি। স্যার, আপনার লেখা FM Method বইটি অসাধারণ। ইংরেজী ভাষা শেখার উপর যত লেখকের বই রয়েছে এই বাংলাদেশে তার মধ্য থেকে আপনার FM Method বইটি আমার জন্য শ্রেষ্ঠ উপহার। আমি যখন বইটি পড়ছিলাম তখন প্রত্যেকটা অধ্যায় বা ধাপে ধাপে মনে মনে হচ্ছিল এই বইটি আরোও আগে কেনো আমি পাইনি এবং এও মনে হচ্ছিল সরকারের উচিৎ এই বইটি বোর্ড বই হিসেবে সীকৃতি দেয়া। যদি এই বইটি বোর্ড বই হিসেবে প্রাইমারি স্কুল থেকে শুরু করে মাধ্যমিক স্কুলে এবং কলেজে পড়ানো হয়ে ইনসাল্লাহ অবস্যই ক্লাশ নবম ও দশম শ্রনী থেকেই ইংলিশে অনর্গল কথা বলতে পারবে ছাত্র ছাত্রীরা। খাবার যদি রান্না করার পর টেষ্ট না হয় বা খাবারে স্বাধ না থাকে তা খেতে ভাল লাগেনা। গ্রামারের মাধ্যমে প্রচলিত যে ইংরেজী শিক্ষা এতে কোনো প্রকার স্বাদই নাই যার ফলে শিক্ষার্থীরা স্কুলে ইংরেজীকে ভয় পায় এবং ইংরেজী ভাষা শিখতে বা খেতে অনিহা দেখায় আর তাই মুখস্থ ও নকল করার উপর নির্ভরশীল হয়ে পরে। আমি নিজেই সাক্ষী পরীক্ষার পূর্বেই টাকার বিনিময় বোর্ড প্রশ্ন পেয়ে যেতাম। আমি কলেজে ইংরেজী প্রশ্ন টাকা দিয়ে কিনতাম। পরীক্ষায় ফেল করার চেয়ে টাকা দিয়ে প্রশ্ন কেনাটাই ভাল মনে করতাম তখন, কারন এছাড়া উপায় ছিলনা। আমার ইংরেজীর উপর কত আগ্রহ তা আপনি নিজে চোখে না দেখলে বুঝবেননা হয়ত। কিন্তু এই আমি সেই ৬ষ্ঠ শ্রেনী থেকে আজ অবধি চেষ্টা করেও ইংরেজীতে দক্ষতা অর্জন করতে পারলামনা।একটি Sentence লিখতে গেলে কোথায় যেনো সংশয় থেকে যেতো। যখনি প্রচলিত ইংরেজী বোর্ড বইগুলো হাতে নেই ইংরেজী শেখার জন্য তখনি মাথা ঘুড়ে যায় তাদের ভুরি ভুরি অহেতুক ও নিষ্প্রয়োজনীয় গ্রামার রুলস দেখে যার ফলে প্রচুর আগ্রহ থাকার পরও বিরক্তিবোধ হতো তারপরও কষ্ট করে পড়তাম।পড়লে কি হবে অধ্যায়ে অধ্যায়ে গিয়ে আটকে যেতে হতো আর প্রশ্ন জাগতো কেনো এমন হলো? তাহলে এটার সমাধ কিভাবে হবে? । কিন্তু প্রশ্নের উত্তর দেবে কে? যে বোর্ডব বই পড়ে ছাত্র ছাত্রীর মনে জাগা প্রশ্নের উত্তর সহজে খুজে পায়না শিক্ষা ব্যাবস্থায় সেই বইয়ের কী ধরকার আমার বুঝে আসেনা। আমি একজন ছাত্র আমি জানি ছাত্র ছাত্রীরা চার'শ পাঁচ'শ টাকা দিয়ে প্রচলি যে ইংরেজী বোর্ড বইগুলো কেনে তা কেবল মাত্র পেরাগ্রাফ, লেটার,এ্যাপলিকেশন,কম্পজিশন,ডায়ালগ মুখস্ত করার জন্যই কেনে, ইংরেজী ভাষা শেখার জন্য নয় কারন এগুলোতে শেখার মত কিছুই নেই। এত বাধা সত্যেও অনেকটা জোর পূর্বক টেন্স গ্রামারগুলো গিলতাম কিন্তু দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে তারপও ২০ বছর পার হয়ে গেলো আজও ইংরেজী ভাষা শেখা হয়নি অথচ এখন আমি অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্র । ঐ অবৈজ্ঞানিক বইগুলো দিয়ে কিছুই শিখতে পারিনি ফলে অনার্সে ইংরেজী বিষয়ে আমার আর চান্স পাওয়া হলনা। এখনও কষ্ট পাই এই ভেবে যে ইংরেজী শেখার প্রতি এত প্রবল আগ্রহ থাকার পরও ইংরেজী নিয়ে পড়াশোনা করতে পারলামনা। বুকের ভেতর খুব ব্যাথা লাগে মনে হলে। এখন ইংরেজী একটা কথা বলতে গেলে আগে গ্রামারের রুলস মাথায় চলে আসে এবং ভাবতে হয় যার ফলে একটা লাইন লিখতে বা বলতে গেলে সময় নিয়েতে হয় হাফ মিনিট। আর এইভাবে হাফ মিনিট করে যদি ভেবে কথা বলি বা লিখি তাহলে পরিস্থিতি কি দাঁড়াবে একবার ভাবুন? প্রচলিত ইংরেজি শিক্ষা ব্যাবস্থা আমার জীবনের কত বড় ক্ষতি করেছে একমাত্র আমি ভাল বুঝতেছি। আমি এক কথায় বলতে চাই আমার এই অধপতনের জন্য শিক্ষা বোর্ডের দায়ীত্বে যারা আছেন তাদের বিচার হওয়া উচিৎ। কারন ইংরেজী বিষয়ে অনার্স করার সিদ্ধান্তটা আমার ভবিষ্যৎ ছিল কিন্তু ইচ্ছা থাকা সত্যেও পারলামনা তাদের অবৈজ্ঞানিক শিক্ষা পদ্ধতির কারনে। কিন্তু আজ কয়েকদিন হলো ফিরোজ মুকুল স্যারের FM ম্যাথড বই পড়ে নিজেকে আত্মনির্ভরশীল মনে হচ্ছে । এখন ইংরেজী বলেতে সমস্যা হচ্ছেনা। পূর্বে ইংরেজী বলা বা লিখার আগে বা পরে ভাবতে হতো sentence টি ঠিক হয়েচ্ছে কিনা, গ্রমারের নিয়ম অনুসারে হয়েছে কিনা কিন্তু এখন আর ভাবতে হয়না। এমনিতেই সব ঠিক হয়ে যায়। এখন আমি বুঝতেও পারি কোথায় কোন গ্রামার ব্যাবহার করতে হবে। যখন একজন ছাত্র বা ছাত্রী ভাষা শিখে ফেলে তখন গ্রামার বুঝাটা বা গ্রামার ধরতে পারাটা তার জন্য কোনো ব্যাপারইনা। ফিরোজ মুকুল স্যারের। FM Method বই পড়ার পর যেমনটা আমার কাছে এখন গ্রামার বুঝতে পারাটা কোনো ব্যাপারইনা। আল্লাহর রহমতে মুকুল স্যার এফএম ম্যাথড বইয়ের প্রত্যেকটা পার্ট এত বৈজ্ঞানিক কৌশলের সাথে সাজিয়েছেন যা পড়লে মনে হয় ২০ বছরে যা পারিনি কয়েক দিনেই তা পারছি FM Method বইটির সাহায্যে। সত্যিকার অর্থেই বইটি বাংলাদেশের শ্রেষ্ট বই ইংরেজী ভাষা শেখার উপর।যদি তাই না হত তাহলে এত কষ্ট করে এতগুলো কথা লিখতামনা সময় ব্যায় করে এবং নিজের বদনাম নিজে প্রকাশ করতামনা। বইটি বোর্ড বই হিসেবে ক্লাশে পড়ানো উচিৎ এবং বাংলাদেশে ইংরেজী শেখার উপর যত বই রয়েছে তার মধ্যে FM Method বইটি অবশ্যই বোর্ড বই হিসেবে সমীকৃতি পাওয়ার সবচেয়ে বেশি যোগ্যতা রাখে। আল্লাহু আকবার। স্যার আপনি কি সুন্দর করে প্রত্যেকটা অধ্যায় সাজিয়েছেন, অসাধারন। সত্যি-ই আপনি ইংরেজী অধ্যাপক ও গবেষক হিসেবে জাতিকে কিছু দিতে পেরেছেন যা ইংরেজী শেখার ক্ষেত্রে প্রত্যেকটা মানুষের জন্য শ্রেষ্ঠ উপহার। নিঃসন্দেহে আপনার এই FM Method বইটি আপনার জীবনের শ্রষ্ঠ কীর্তি। আল্লাহ আপনাকে জান্নাতবাসী করুন।আমীন। আপনার জন্য আমার মন থেকে শুধু দোয়াই আসছে।